+8801873401771 info@smpestcontrolctg.com

তেলাপোকা, আমাদের দৈনন্দিন জীবনের একটি খুবই পরিচিত ও অসহনীয় সমস্যা। বিশেষ করে ঘরবাড়ি, অফিস, দোকানপাট, রেস্টুরেন্ট ইত্যাদি জায়গায় এই পোকাটি খুবই প্রচলিত। আমাদের অজান্তেই আমাদের কিছু ভুলের কারণে আমাদের ঘরবাড়ি তে তেলাপোকার ব্যপক উপদ্রব হয়। এগুলো নিয়ন্ত্রণ করতেও জানা উচিত এই সাধারণ কারণ গুলো। 

তেলাপোকা কেন হয়, তাদের বাসস্থান কেমন এবং তারা কোন পরিবেশ পছন্দ করে, তা জানলে তেলাপোকা নিয়ন্ত্রণে রাখা অনেক সহজ হয়। চলুন, আজকে এই বিষয়গুলো নিয়েই বিস্তারিত আলোচনা করা যাক।

Table of Contents

তেলাপোকার কারণ

 

 

তেলাপোকার কারণ

 

 

তেলাপোকা সাধারণত এমন স্থানে বাসা বাঁধে যেখানে খাদ্য ও পানি সহজলভ্য। কিন্তু আসলে কী কারণে তেলাপোকা হয়?

১. খাবারের সহজলভ্যতা

তেলাপোকা খাবার খুঁজে পেলে খুব দ্রুত বংশবিস্তার করতে পারে। রান্নাঘরে বা ডাইনিং টেবিলে খাবার ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকলে তা তাদের আকর্ষণ করে।

২. পানি বা আর্দ্রতার উৎস

তেলাপোকা আর্দ্রতা ভালোবাসে। বাসার মধ্যে পানির লিকেজ, সিঙ্কের নিচে পানি জমে থাকলে, অথবা বাথরুমে পানির উৎস থাকলে তারা সেখানে আশ্রয় নেয়।

৩. আবর্জনার উপস্থিতি

আবর্জনা বা ময়লার ঝুড়িতে খাবারের অবশিষ্টাংশ থাকলে তেলাপোকার সংখ্যা বেড়ে যায়। বিশেষ করে রান্নাঘরের ময়লা নিয়মিত পরিষ্কার না করলে।

৪. খাদ্য এবং জৈব পদার্থের স্তূপ

বাড়ির কোনো জায়গায় খাদ্যদ্রব্য বা জৈব পদার্থ স্তূপ আকারে থাকলে তেলাপোকা সেখানে আশ্রয় নেয় এবং খাবার খুঁজে পায়।

৫. ফাটল এবং ফোঁটালার উপস্থিতি

তেলাপোকা দেয়ালের ফাটল, ফোঁটালা, অথবা অন্য কোন খোলা জায়গা দিয়ে সহজেই প্রবেশ করতে পারে। এসব জায়গা তাদের আবাসস্থল হিসেবে আদর্শ।

৬. অসচেতনতা

বাসার মালিকরা যদি তেলাপোকার সম্ভাব্য উৎস এবং তাদের বিস্তারের উপায় সম্পর্কে সচেতন না হন, তবে সমস্যা তীব্র হতে পারে।

৭. ঘরবাড়ির পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার অভাব

রান্নাঘর, বাথরুম, এবং অন্যান্য জায়গা নিয়মিত পরিষ্কার না করলে তেলাপোকার সংখ্যা বাড়তে থাকে। তারা নোংরা এবং অগোছালো জায়গায় থাকতে পছন্দ করে।

৮. ব্যবহৃত আসবাবপত্র বা সরঞ্জাম

ব্যবহৃত আসবাবপত্র বা সরঞ্জাম কিনলে তার মধ্যে তেলাপোকার ডিম বা ছোট ছোট তেলাপোকা থাকতে পারে যা নতুন বাসায় ছড়িয়ে পড়ে।

৯. প্রতিবেশীর তেলাপোকা সমস্যা

প্রতিবেশীর বাসায় যদি তেলাপোকার সমস্যা থাকে, তবে সেগুলি সহজেই পাশের বাসায় চলে আসতে পারে।

১০. কার্পেট এবং ম্যাট

 

কার্পেট এবং ম্যাট

 

কার্পেট এবং ম্যাটে খাবারের কণা জমে গেলে তেলাপোকার জন্য উপযুক্ত পরিবেশ সৃষ্টি হয়। নিয়মিত পরিষ্কার না করলে সমস্যা হয়।

১১. কাগজের স্তূপ

তেলাপোকা কাগজ এবং বইয়ের মধ্যে লুকিয়ে থাকে এবং খাদ্য হিসেবে কাগজের কণা ব্যবহার করতে পারে। বইয়ের আলমারি এবং কাগজের স্তূপ তাদের জন্য আশ্রয়স্থল হতে পারে।

১২. রান্নাঘরের খোলা খাবার

রান্নাঘরে খাবার খোলা রেখে দিলে তা তেলাপোকার আকর্ষণ করে। খাবার সর্বদা সংরক্ষিত জায়গায় রাখলে ভালো হয়।

১৩. তুলনামূলক কম রোদ বা আলো

তেলাপোকা অন্ধকার স্থান পছন্দ করে। যদি কোনো স্থান আলো না পায় বা রোদ না লাগে, তবে সেখানে তেলাপোকার সংখ্যার বৃদ্ধি হতে পারে।

১৪. তাপমাত্রার অনুকূল পরিবেশ

তেলাপোকা গরম এবং আর্দ্র পরিবেশ পছন্দ করে। যদি বাসার ভেতরের তাপমাত্রা তাদের উপযুক্ত হয় তবে তারা দ্রুত বংশবিস্তার করতে পারে।

১৫. পশুপাখির খাবার

যদি বাসায় পোষা প্রাণী থাকে এবং তাদের খাবার খোলা অবস্থায় রাখা হয়, তবে তা তেলাপোকার জন্য আকর্ষণীয় হয়ে ওঠে।

১৬. লক করা যায় না এমন আবর্জনার পাত্র

আবর্জনার পাত্র যদি লক করা না যায় তবে তেলাপোকা সহজেই সেখানে প্রবেশ করতে পারে এবং খাবার খুঁজে পেতে পারে।

১৭. অপরিষ্কার প্লাম্বিং

বাসার প্লাম্বিং ব্যবস্থা যদি অপরিষ্কার থাকে তবে তেলাপোকা সেখানে বাসা বাঁধতে পারে। বিশেষ করে সিঙ্ক এবং বাথরুমের পাইপে।

১৮. প্যাকেজিংয়ের মাধ্যমে পরিবহন

মালামাল, জিনিসপত্র, অথবা প্যাকেজিংয়ের মাধ্যমে তেলাপোকা বাসায় চলে আসতে পারে। তাই নতুন কিছু বাসায় আনার সময় সাবধান থাকা প্রয়োজন।

১৯. অপরিচ্ছন্ন রেফ্রিজারেটর

রেফ্রিজারেটর যদি নিয়মিত পরিষ্কার না করা হয়, তবে এর পেছনে এবং নিচে তেলাপোকা বাসা বাঁধতে পারে।

২০. জলের উৎস হিসেবে পাত্র

বাসার আশেপাশে যদি জলের পাত্র, যেমন ফ্লাওয়ার ভাস বা অন্য কোন খোলা পাত্র থাকে, তবে তেলাপোকা সেখানে পানি খুঁজে পেতে পারে।

তেলাপোকার বাসস্থান

 

 

তেলাপোকার বাসস্থান

 

 

তেলাপোকার বাসস্থান সম্পর্কে জানতে হলে আমাদের আগে জানতে হবে তারা ঠিক কোন ধরণের স্থানে বাসা বাঁধতে পছন্দ করে। তারা মূলত কিছু নির্দিষ্ট ধরণের স্থানে বাসা বাঁধে, যা নিচে আলোচনা করা হলো:

১. গোডাউন ও স্টোরেজ এরিয়া: তেলাপোকা সাধারণত এমন স্থান পছন্দ করে যেখানে খাবারের সঞ্চয় থাকে। গোডাউন, স্টোরেজ রুম বা দোকানের খাদ্য সংরক্ষণ স্থান তাদের জন্য খুবই আকর্ষণীয়।

২. রান্নাঘর: রান্নাঘর তেলাপোকার জন্য আদর্শ স্থান। এখানে খাদ্যের অবশিষ্টাংশ, পানি এবং উষ্ণ পরিবেশ রয়েছে যা তাদের জন্য আকর্ষণীয়।

৩. বাথরুম: বাথরুমের আর্দ্র পরিবেশ তেলাপোকা খুব পছন্দ করে। বিশেষ করে কমোডের পিছনে, সিঙ্কের নিচে, এবং পায়খানার আশেপাশে তেলাপোকা বেশি দেখা যায়।

৪. আসবাবপত্রের নিচে ও পিছনে: তেলাপোকা এমন স্থান পছন্দ করে যেখানে তারা সহজে লুকিয়ে থাকতে পারে এবং যেখানে কম আলো ও কম চলাচল থাকে। আসবাবপত্রের নিচে ও পিছনে, ক্যাবিনেটের ভিতরে, এবং ড্রেনের আশেপাশে তাদের বেশি দেখা যায়।

৫. ড্রেন ও পাইপলাইন: তেলাপোকা সাধারণত ড্রেন ও পাইপলাইনের ভিতরে বাসা বাঁধে। এগুলো আর্দ্র ও অন্ধকার স্থান হওয়ায় তেলাপোকার জন্য আদর্শ।

তেলাপোকার পছন্দের পরিবেশ

 

 

তেলাপোকার পছন্দের পরিবেশ

 

তেলাপোকার পছন্দের পরিবেশ সম্পর্কে জানলে তাদের প্রতিরোধ করা অনেক সহজ। নিচে তেলাপোকার পছন্দের কিছু পরিবেশের বৈশিষ্ট্য আলোচনা করা হলো:

১. আর্দ্র ও উষ্ণ পরিবেশ: তেলাপোকা সাধারণত ২০-৩০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় সবচেয়ে বেশি সক্রিয় থাকে। আর্দ্র ও উষ্ণ পরিবেশ তাদের জন্য সবচেয়ে আরামদায়ক।

২. অন্ধকার ও আলোহীন স্থান: তেলাপোকা আলো পছন্দ করে না। তারা সাধারণত রাতের বেলা সক্রিয় হয় এবং দিনের বেলা অন্ধকার স্থানে লুকিয়ে থাকে। বাসার আনাচে-কানাচে, আসবাবপত্রের নিচে, ক্যাবিনেটের ভিতরে, এবং অন্যান্য আলোহীন স্থানে তাদের বেশি পাওয়া যায়।

৩. খাবারের অবশিষ্টাংশ: তেলাপোকা খাদ্যপ্রেমী পোকা। তারা প্রায় সব ধরনের খাদ্য খেতে পছন্দ করে, বিশেষ করে মিষ্টি, ময়দা জাতীয় খাদ্য, মাংস, এবং পঁচা-গলা খাবার। রান্নাঘরের টেবিল, সিঙ্কের আশেপাশে, এবং আবর্জনার পাত্রে খাদ্যের উচ্ছিষ্ট তাদের আকর্ষণ করে।

৪. আবর্জনার স্তূপ: আবর্জনা, নোংরা ও অপরিষ্কার স্থান তেলাপোকার প্রিয়। যেখানে আবর্জনা জমা হয় এবং নিয়মিত পরিষ্কার করা হয় না, সেখানে তেলাপোকার বাসা বাঁধার সম্ভাবনা বেশি।

তেলাপোকা প্রতিরোধের উপায়

 

 

তেলাপোকা প্রতিরোধের উপায়

 

তেলাপোকা প্রতিরোধ করার জন্য কিছু কার্যকর পদ্ধতি অনুসরণ করা যায়:

১. পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখা: ঘরের সব স্থান নিয়মিত পরিষ্কার রাখতে হবে। রান্নাঘর, বাথরুম, এবং আবর্জনার পাত্র নিয়মিত পরিষ্কার করা উচিত। খাবারের উচ্ছিষ্ট যাতে ঘরে না থাকে, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।

২. খাবার সংরক্ষণ: খাবার সঠিকভাবে সংরক্ষণ করতে হবে। খাবারের পাত্র ঢেকে রাখতে হবে এবং খাদ্যের উচ্ছিষ্ট না ফেলে দেওয়া উচিত।

৩. আর্দ্র স্থান শুষ্ক রাখা: বাথরুম ও রান্নাঘরের আর্দ্র স্থানগুলো শুষ্ক রাখতে হবে। পানির লিকেজ থাকলে তা দ্রুত মেরামত করতে হবে।

৪. ড্রেন ও পাইপলাইন পরিষ্কার রাখা: ড্রেন ও পাইপলাইন নিয়মিত পরিষ্কার করতে হবে যাতে তেলাপোকা বাসা বাঁধতে না পারে।

৫. তেলাপোকার প্রতিরোধক ব্যবহার: বাজারে বিভিন্ন ধরনের তেলাপোকার প্রতিরোধক পাওয়া যায়। তেলাপোকার স্প্রে, জেল, এবং ট্র্যাপ ব্যবহার করে তেলাপোকা নিয়ন্ত্রণ করা যায়।

এক নজরে তেলাপোকা সমস্যা ও সমাধান 

 

তেলাপোকা মানুষের জীবনে এক বড় সমস্যা। তেলাপোকা কামড় দিলে ত্বকে লালচে হয়ে চুলকানি হতে পারে, যা সংক্রমণের সম্ভাবনা বাড়িয়ে দেয়। তেলাপোকা মারার বিভিন্ন ঔষধ, স্প্রে, জেল, এবং পাউডার পাওয়া যায় যা তেলাপোকা দমন করতে সাহায্য করে। চায়না তেলাপোকা দূর করার উপায় এবং ঔষধ বেশ কার্যকর। 

তেলাপোকা দূর করার কিছু ঘরোয়া উপায়ও আছে যেমন বেকিং সোডা ও চিনি মিশ্রণ, তেজপাতা বা নিমপাতা ব্যবহার করা। আলমারি থেকে তেলাপোকা দূর করার জন্য নিয়মিত পরিষ্কার রাখা, বোরিক অ্যাসিড ছিটানো ইত্যাদি কার্যকর হতে পারে। ছোট তেলাপোকা মারার ঔষধ ও দূর করার উপায়ের মধ্যে তেলাপোকা মারার পাউডার, তেলাপোকা মারার স্প্রে এবং তেলাপোকা মারার চক উল্লেখযোগ্য।

তেলাপোকা দমন করার জন্য নিয়মিত তেলাপোকা মারার ঔষধ বা স্প্রে ব্যবহার করা উচিৎ। তেলাপোকা মারার বিষ বা ঔষধ খেলে স্বাস্থ্যের ক্ষতি হতে পারে, তাই এটি ব্যবহারে সতর্কতা অবলম্বন করা প্রয়োজন। তেলাপোকা ছারপোকা মারার স্প্রেও ব্যবহার করা যেতে পারে।

মোট কথা, তেলাপোকা শুধুমাত্র একটি বিরক্তিকর পোকা নয়, এটি স্বাস্থ্যঝুঁকিও সৃষ্টি করতে পারে। সঠিক সময়ে তেলাপোকা দমন করার ব্যবস্থা না নিলে তেলাপোকা দ্রুত বংশবৃদ্ধি করতে পারে এবং ঘরে রোগের প্রাদুর্ভাব ঘটাতে পারে। তাই, তেলাপোকা দূর করার বিভিন্ন ঔষধ ও ঘরোয়া উপায় ব্যবহার করে, তেলাপোকা মুক্ত একটি স্বাস্থ্যকর পরিবেশ নিশ্চিত করা উচিত।

 

উপসংহার

তেলাপোকা প্রতিরোধে পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখা এবং সঠিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তেলাপোকা যেমন নোংরা পরিবেশ পছন্দ করে, তেমনই খাদ্যের উচ্ছিষ্ট এবং আর্দ্র স্থান তাদের জন্য আকর্ষণীয়। তাই ঘরবাড়ি, অফিস, দোকানপাট সব জায়গা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখা উচিত এবং খাদ্য সঠিকভাবে সংরক্ষণ করা উচিত। এছাড়া আর্দ্র স্থান শুষ্ক রাখা এবং ড্রেন ও পাইপলাইন নিয়মিত পরিষ্কার রাখা উচিত। এভাবে তেলাপোকার সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব।

আরো কিছু প্রশ্ন:

FAQ প্রশ্ন ও উত্তর:

প্রশ্ন ১: ঘরে তেলাপোকা দূর করার উপায় কি?

উত্তর:তেলাপোকা দূর করার জন্য ঘরে নিয়মিত পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখা, খাবার সঠিকভাবে সংরক্ষণ করা, এবং যেকোনো ফাঁক-ফোঁকর বন্ধ করা গুরুত্বপূর্ণ। এছাড়াও, তেলাপোকা তাড়ানোর ঘরোয়া উপায় যেমন বেকিং সোডা এবং চিনি মিশ্রণ ব্যবহার করা যেতে পারে।

 

প্রশ্ন ২: তেলাপোকা মারার ওষুধ কি?

উত্তর:বাজারে বিভিন্ন ধরনের তেলাপোকা মারার ওষুধ পাওয়া যায়, যেমন বোরিক অ্যাসিড, তেলাপোকা স্প্রে, এবং তেলাপোকা মারার চক। এসব ওষুধ তেলাপোকা দ্রুত মারতে সাহায্য করে।

 

প্রশ্ন ৩: ছোট ছোট তেলাপোকা মারার উপায় কি?

উত্তর:ছোট ছোট তেলাপোকা মারার জন্য বোরিক অ্যাসিড এবং চিনি মিশ্রণ ব্যবহার করা যেতে পারে। এছাড়া, তেলাপোকা মারার পাউডার এবং চকও কার্যকরী হতে পারে।

 

প্রশ্ন ৪: জার্মান তেলাপোকা মারার উপায় কি?

উত্তর:জার্মান তেলাপোকা মারার জন্য বিশেষ ধরনের তেলাপোকা মারার ওষুধ এবং স্প্রে ব্যবহার করা যেতে পারে। এছাড়া, নিয়মিতভাবে ঘরের ফাঁক-ফোঁকর পরিস্কার করে রাখা এবং খাবার সঠিকভাবে সংরক্ষণ করাও গুরুত্বপূর্ণ।

 

প্রশ্ন ৫: তেলাপোকা তাড়ানোর ঘরোয়া উপায় কি?

উত্তর:তেলাপোকা তাড়ানোর ঘরোয়া উপায়ের মধ্যে বেকিং সোডা ও চিনি মিশ্রণ, লবঙ্গ এবং তেজপাতা ব্যবহার করা যেতে পারে। এছাড়া, লেবুর রস ও পানির মিশ্রণ স্প্রে করাও কার্যকরী হতে পারে।. 

 

সোর্স : 

১. Effectiveness of Gel Bait Insecticides for German Cockroach (Blattodea: Ectobiidae) Management in Multifamily Housing”

  • Authors: Wang, C., Scharf, M. E., & Bennett, G. W.
  • Published in: Journal of Economic Entomology, 2004

২. “Cockroaches: Ecology, Behavior, and Natural History”

  • Author: William J. Bell, Louis M. Roth, Christine A. Nalepa